Message from the Vice-Chancellor
 Vice Chancellor

রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ে আপনাদের স্বাগত জানাই। উচ্চশিক্ষার বিভিন্ন ক্ষেত্রে অগ্রসরমান বিশ্বের সঙ্গে সংগতি রক্ষা, শিক্ষা ও গবেষণার মাধ্যমে জাতীয় প্রয়োজন পূরণ এবং বাংলাদেশের জাতীয় সংগীতের স্রষ্টা নোবেলজয়ী কবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের অমর সৃষ্টিকে এদেশের মানুষের স্মৃতিতে চির-অম্লান করে রাখার উদ্দেশ্যে রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠিত হয়। বয়সে নবীন এই বিশ্ববিদ্যালয় তার কাঙ্ক্ষিত পথে অগ্রসর হচ্ছে প্রত্যাশিত ছন্দে।

উপমহাদেশের শিক্ষা-সংস্কৃতির ঋদ্ধ ঐতিহ্য প্রাণিত করে আমাদের। তক্ষশীলা, নালন্দা, বিক্রমশীলা মহাবিহারসহ বহু প্রাচীন বিদ্যায়তনের গৌরবদীপ্তি বিশ্ববিশ্রুত। এদেশের মাটিও বিদ্যাচর্চার পুণ্যভূমি হয়ে উঠেছিল বহু শতাব্দী আগে থেকেই। ইউরোপীয় শিক্ষাচিন্তা ও পদ্ধতির প্রসিদ্ধির যুগে এসেও বাংলাদেশের শিক্ষাদর্শকে কীভাবে আরও ফলদায়ী করা যায়, তা নিয়ে নীতিনির্ধারকগণ ভাবছেন। এক্ষেত্রে বাংলাদেশের মৃত্তিকালগ্ন সংস্কৃতি আশার প্রদীপ হয়ে উঠতে পারে। রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের চেতনায় এদেশের মৃত্তিকালগ্ন সংস্কৃতির উত্তরাধিকার সযত্নে ছড়িয়ে দিতে চায়। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের শিক্ষাদর্শন, মানবমুক্তির চেতনা ও দার্শনিক মানসদর্শন এই প্রক্রিয়ায় আমাদের প্রেরণাদায়ী শক্তি।

রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় প্রাচ্য শিক্ষা-সংস্কৃতির প্রতি শ্রদ্ধা রেখে পরিবর্তিত বিশ্বপরিস্থিতিকে মোকাবেলা করার জন্য বিচিত্রমুখীন জ্ঞান- বিজ্ঞানের নানা শাখায় অবিরাম গবেষণা ও চর্চার মধ্য দিয়ে দেশ ও মানুষের সেবায় ব্রতী আত্মমর্যাদাবান ও দক্ষ মানবশক্তি তৈরিতে সচেষ্ট। একইসঙ্গে মহান মুক্তিযুদ্ধের আদর্শ লালন ও চর্চার মধ্য দিয়ে শিক্ষার্থীরা যে আত্মোপলব্ধি অর্জন করছে, তা দেশপ্রেমিক জনগোষ্ঠী তৈরিতে ভূমিকা রাখবে বলে আমরা মনে করি।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তাঁর স্বপ্ন হত্যার দায় বাঙালি উপেক্ষা করতে পারে না। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা বিনির্মাণে যোগ্য স্নাতক তৈরির মধ্য দিয়ে সেই দায় সামান্য হলেও মোচন করা সম্ভব হবে। সর্বোপরি রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় যে শিক্ষাসংস্কৃতির অনুশীলন করছে, তা শিক্ষার্থীদের দেশ ও দেশের মানুষদের প্রতি যাবতীয় ঋণ ও দায়িত্বের ব্যাপারে সচেতন করছে। এই আত্মচেতনা দেশের সামগ্রিক উন্নয়ন ও প্রবৃদ্ধিকে ত্বরান্বিত করবে বলে আমরা বিশ্বাস করি । মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যে স্বপ্নকে বাস্তবায়নের অভিপ্রায়ে এই সাংস্কৃতিক বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করেছেন তা পুরণে রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় পরিবার অঙ্গীকারবদ্ধ।


 জয় বাংলা
 জয় বঙ্গবন্ধু
 বাংলাদেশ চিরজীবী হোক

 প্রফেসর ড. মো: শাহ্ আজম
 ভাইস-চ্যান্সেলর